টাকা আয়ের উপায় যখন আউটসোর্সিং

দিনের পর দিন ইন্টারনেট সেবা যতই সহজলভ্য ও দ্রুতগতির হচ্ছে, ততই মানুষ আস্তে আস্তে ইন্টারনেট নির্ভর হয়ে পড়ছে। এর ফলে দেশে তৈরী হচ্ছে প্রচুর ইন্টারনেটের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের কৌশল। একটু ভালো প্রশিক্ষণ আর নিজের ক্রিয়েটিভিটি থাকলে আজকাল যে কেউই ইন্টারনেটের মাধ্যমে অর্থোপার্জন করতে পারে।

ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন ধরনের কাজ করিয়ে নেয়। নিজ প্রতিষ্ঠানের বাইরে অন্য কাউকে দিয়ে এসব কাজ করানোকে আউটসোর্সিং বলে। যারা আউটসোর্সিয়ের কাজ করে দেন, তাদের ফ্রিল্যান্সার বলে। ফ্রিল্যান্সার মানে হলো মুক্ত বা স্বাধীন পেশাজীবী। আউটসোর্সিংয়ের কাজের খোঁজ থাকে, এমন সাইটে যিনি কাজটা করে দেন, তাকে বলা হয় কনট্রাক্টর। আর যিনি কাজ দেন, তাকে বলে বায়ার/এমপ্লয়ার।

যে ধরনের কাজ পাওয়া যায়

আউটসোর্সিং সাইট বা অনলাইন মার্কেটপ্লেসে কাজগুলো বিভিন্ন ভাগে ভাগ করা থাকে। যেমন- ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, নেটওয়ার্কিং ও তথ্যব্যবস্থা (ইনফরমেশন সিস্টেম), লেখা ও অনুবাদ, প্রশাসনিক সহায়তা, ডিজাইন ও মাল্টিমিডিয়া, গ্রাহকসেবা, বিক্রয় ও বিপণন, ব্যবসাসেবা ইত্যাদি।

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট

এই বিভাগের মধ্যে আছে আবার ওয়েবসাইট ডিজাইন, ওয়েব প্রোগ্রামিং, ই-কমার্স, ইউজার ইন্টারফেস ডিজাইন, ওয়েবসাইট টেস্টিং, ওয়েবসাইট প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি।

সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট

সফটওয়্যার ডেভেলমেন্টের মধ্যে আছে ডেস্কটপের অ্যাপ্লিকেশন, গেম ডেভেলপমেন্ট, স্ক্রিপ্ট ও ইউটিলিটি, সফটওয়্যার প্লাগ-ইনস, মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন, ইন্টারফেস ডিজাইন, সফটওয়্যার প্রকল্প-ব্যবস্থাপনা, সফটওয়্যার টেস্টিং, ভিওআইপি ইত্যাদি।

নেটওয়ার্কিং ও ইনফরমেশন সিস্টেম

এর মধ্যে আছে নেটওয়ার্কিং অ্যাডমিনেস্ট্রেশন, ডিবিএ-ডাটাবেজ অ্যাডমিনিশট্রেশন, সার্ভার অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, ইআরপি/সিআরএম ইমপ্লিমেন্টেশন ইত্যাদি।

রাইটার ও ট্রান্সলেশন

এর মধ্যে আছে কারিগরি নিবন্ধ লেখা (টেকনিক্যাল রাইটিং), ওয়েবসাইট কনটেন্ট, ব্লগ ও আর্টিকেল রাইটিং, কপি রাইটিং, অনুবাদ, ত্রিয়েটিভ রাইটিং ইত্যাদি।

অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সাপোর্ট

এর মধ্য আছে ডেটা এন্ট্রি, পারসোনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট, ওয়েব রিসার্চ, ই-মেইল রেসপন্স হ্যান্ডলিং, ট্রান্সক্রিপশন ইত্যাদি।

ডিজাইন ও মাল্টিমিডিয়া

এই বিভাগের মধ্যে আছে গ্রাফিক্স ডিজাইন, লোগো ডিজাইন, ইলাস্ট্রেটর, প্রিন্ট ডিজাইন, থ্রিডি মডেলিং, ক্যাড, অডিও ও ভিডিও প্রোডাকশন, ভয়েস ট্যালেন্ট, এনিমেশন, প্রেযেন্টেশন, প্রকৌশল ও কারিগরি ডিজাইন ইত্যাদি।

কাস্টমার সার্ভিস

এর মধ্যে আছে কাস্টমার সার্ভিস ও সাপোর্ট, টেকনিক্যাল সাপোর্ট, ফোন সাপোর্ট, অর্ডার প্রসেসিং ইত্যাদি।

বিক্রয় ও বিপণন

এর মধ্যে আছে বিজ্ঞাপন, ই-মেইল বিপণন, এসইও (সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন), এসইএম (সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং), এসএমএম (সোস্যাল মিডিয়া মার্কেটিং), জনসংযোগ, টেলিমার্কেটিং ও টেলিসেলস, বিজনেস প্ল্যানিং ও মার্কেটিং, মার্কেট রিসার্চ ও সার্ভিস, সেলস ও লিড জেনারেশন ইত্যাদি।

বিজনেস সার্ভিসেস

এর মধ্যে আছে অ্যাকাউন্টিং, বুককিপিং, এইচার/পে-রোল, ফাইনান্সিয়াল সার্ভিসেস এন্ড প্ল্যানিং, পেমেন্ট প্রসেসিং, লিগ্যাল, প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট, বিজনেস কনসাল্টিং, রিক্রুটিং, পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ ইত্যাদি। এগুলো সম্পর্কে পরে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

কাজ পাবেন সেখানে

আউট সোর্সিং কাজ পাওয়া যায় এমন অনেক ওয়েবসাইট আছে। আবার ভূয়া সাইটও বের হয়েছে। ফলে সতর্ক হয়েই কাজ শুরু করতে হবে। আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত এবং নির্ভরযোগ্য কয়েকটি সাইটের ঠিকানা দেওয়া হলো এখানে।

Comments