কোনোকিছু দ্রুত শেখার ৩টি উপায়

একটা কার্য সিদ্ধি করতে হলে আপনাকে সে সম্পর্কে বিশেষ জ্ঞান রাখতে হবে।

কোনো একটি কার্যসিদ্ধি করতে হলে আপনাকে সেই সম্পর্কে বিশেষ জ্ঞান রাখতে হবে। যেমন ধরুন, আপনি ব্যবসা করতে চান, তবে আপনাকে ব্যবসা সম্পর্কে ভাল আইডিয়া থাকতে হবে। নতুবা এ কাজে আপনি সফল হতে পারবেন না। আপনার বাছাইকৃত বিষয়ে ভাল জ্ঞান আহরণের জন্য ৩টি উপায় অবলম্বন করতে পারেন।

১) আবেগ নিয়ন্ত্রণ করুন

একজন নেতার প্রধান কাজ হলো মানুষের সঠিক পথে পরিচালিত করা। এ লক্ষ্যে আপনাকে প্রচুর পড়তে হবে। কারণ আবেগ নিয়ন্ত্রণ করা মোটেও সহজ কাজ না।

কম সময়ে দ্রুত জ্ঞান লাভের প্রধান ধাপ হলো মনোযোগ দিয়ে পড়া। কোনো কাজে মনযোগ না দিলে তা কখনো সফল হবে না। নিজেকে প্রশ্ন করুন, কোন সময়টা আপনার পড়ার উপযুক্ত সময়।

একমাত্র নীরবতায় মানুষ পড়ায় ভালো করে মনোনিবেশ করতে পারে। যা পড়বেন তা আনন্দের সাথে গ্রহণ করুন। চাপ নিয়ে পড়বেন না। কারণ চাপ নিয়ে কোনো কিছু পড়লে তা মাথায় বেশি দিন স্থায়ী থাকে না। নিজেকে দুশ্চিন্তামুক্ত রাখতে চেষ্টা করুন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো সময়ের কাজ সময়ে করা। যখনই আপনার পড়ার জন্য আপনার মনোযোগ তৈরি হবে তখনই পড়ুন।

২) ঘুমের গুরুত্ব ও সময় নিয়ন্ত্রণ

সময়ের গুরুত্ব নিয়ে আগের ধাপে কিছুটা আলোচনা করেছি। এ ধাপেও সময় নিয়ে কিছু বলার আছে। কারণ ঘুমের সাথে সময়ের তাল মিলিয়ে নিতে হবে। ঘুমের জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় ঠিক করে রাখবেন। আপনি যদি পড়ার ফাঁকে ফাঁকে তথা দু’ঘন্টা অন্তর অন্তর ঘুমিয়ে কোনো কিছু পড়েন তবে সেই শিক্ষা আপনার মাথায় বহুদিন থাকবে।

তাছাড়া ঘুম আপনার মানসিক অবস্থাকে সতেজ রাখবে এবং আপনি সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও পড়ায় মনোযোগ দিতে পারবেন। তবে বেশি ঘুমাবেন না। কারণ প্রতিটি বিষয়ের একটি খারাপ দিক থাকে। ঘুম আপনার মানসিক অবস্থা ভাল করবে। কিন্তু বেশি ঘুম তার বিপরীতটা করবে। আপনারা হয়তো লক্ষ্য করেছেন। যেদিন বেশি ঘুম হয় সেদিন মাথাটা কেমন ঝিম ঝিম করে। ঘুমের জন্য এক পারফেক্ট সময় হলো ৮ ঘন্টা। এটাই যথেষ্ট।

৩) রুটিন তৈরীকরণ

সময়! শুরুতে বলা হলো এর প্রধান অংশ। কারণ এর প্রতি ধাপে সময় জড়িত। দ্রুত শিক্ষাগ্রহণ করার জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট সময় সেট করে একটা রুটিন তৈরি করতে হবে। কোন কাজটা কখন করবেন তা নির্ধারণ করুন।

এসব ধাপ ঠিকমতো পালন করলে আপনি কোনো বিষয় দ্রুত আয়ত্ত্ব করার দিকে এগিয়ে যাবেন।

Comments