ফুল ফ্রি স্কলারশিপ নিয়ে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের রাশিয়ায় এমবিবিএস-এর সুবর্ণ সুযোগ

অবিশ্বাস্য শোনালেও আপনি ঠিকই পড়েছেন। পড়াশোনার পাশাপাশি রাশিয়াতে পার্টটাইম জব করে অর্থোপার্জনের সুযোগ যেমন রয়েছে, তেমনই এমবিবিএস ডিগ্রি শেষে চাইলে রাশিয়াতেই ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগও রয়েছে। সেই সাথে গোটা বিশ্বে মানবসেবার দুয়ারও উন্মুক্ত হয়ে যাবে আপনার জন্য।

স্কলারশিপের সুবিধাসমূহ

👉 মাসিক ৫০-১০০ ডলার (মেডিকেলভেদে) বৃত্তি, যা দিয়ে খাবারদাবারসহ অন্যান্য হাতখরচ খুব সহজেই উঠে আসবে

👉 টিউশন ফি মওকুফ

👉 হোস্টেল ফি মওকুফ

👉 ভর্তি ফি মওকুফ

👉 পরীক্ষা ফি মওকুফ

আবেদনের শেষ সময়

১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

যোগাযোগ

আসন সংখ্যা সীমিত। তাই এখনই পূরণ করে ফেলুন নিচের ফর্মটি। একজন আমাদের প্রতিনিধি দ্রুতই যোগাযোগ করবেন আপনার সাথে।

দেরি না করে তাই আজই যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে:

মোবাইল: +8801535714822
ফেসবুক: facebook.com/ysibangla.ac.bd
ওয়েবসাইট: www.ysibangla.com

বিশেষ দ্রষ্টব্য

কেবলমাত্র ওয়াইএসআই বাংলা লিমিটেডের মাধ্যমে আবেদনকারীরাই ফুল ফ্রি স্কলারশিপের এই সুযোগ পাবেন।

কেন আপনি রাশিয়াই মেডিকেল বিষয়ে পড়তে যাবেন?

১) রাশিয়ার অধিকাংশ উপরের সারির মেডিকেল ইউনিভার্সিটিতেই বিদেশী শিক্ষার্থীদের কোনো ভর্তি পরীক্ষা দিতে হয় না। মাধ্যমিক পরীক্ষায় পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন ও জীববিজ্ঞান বিষয়ে কমপক্ষে ৫০% মার্কস পেলেই কোনো ছাত্র রাশিয়ার মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পাবে।

২) মেডিকেলে বিদেশী শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার জন্য সরকার বিভিন্ন রকম সুযোগ-সুবিধা দিয়ে থাকে।

৩) পশ্চিমা দেশগুলোর সাথে তুলনা করলে রাশিয়ায় থাকা-খাওয়ার খরচ আপনার হাতের নাগালেই।

৪) এখান থেকে পাস করে বেরিয়ে আপনি বিশ্বের যেকোনো দেশেই কাজ করতে পারবেন, কারণ রাশিয়ার মেডিকেল শিক্ষাব্যবস্থা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃত।

৫) আপনাকে নতুন করে রাশিয়ান ভাষা শিখতেই হবে এমন কোনো কথা নেই। ইংরেজি ভাষা জানা থাকলেই আপনি সেখানে পড়াশোনা করতে পারবেন।

৬) GRE, IELTS বা TOEFL দেয়ার কোনো দরকারই নেই।

৭) ইন্টার্নশিপ চলাকালে বিশ্বমানের হাসপাতাল ও ডাক্তারদের সংস্পর্শে আসার সুযোগ।

শিক্ষার্থীদের জন্য যত সুযোগ-সুবিধা

১) স্বল্প খরচে সর্বোচ্চ মানসম্মত শিক্ষা: রাশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে পড়াশোনার খরচ একই ক্ষেত্রে আমেরিকা, কানাডা ও যুক্তরাজ্যের খরচের চেয়ে অনেক গুণ বেশি সাশ্রয়ী। এছাড়া যদি শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের মানের দিকেও খেয়াল করেন, তাহলেও দেখা যাবে পাশ্চাত্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাথে বেশ ভালোই প্রতিযোগিতায় সক্ষম রাশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।

২) স্কলারশিপ: বিশ্বের স্বল্প সংখ্যক দেশের মাঝে রাশিয়া একটি যারা বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য ফ্রি টিউশনের ব্যবস্থা করে থাকে। প্রতি বছরই রাশিয়া সরকারের পক্ষ থেকে বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য কয়েক হাজার স্কলারশিপ (কোটাভিত্তিক) দেয়া হয়ে থাকে। উদাহরণস্বরুপ, ২০১৯ সালে রাশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সর্বমোট ১৫,০০০ কোটা সংরক্ষিত ছিলো বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য।

৩) অবিশ্বাস্য কম খরচে থাকা-খাওয়া: মানসম্মত শিক্ষার এবং স্কলারশিপের সাথে সাথে শিক্ষার্থীদের জন্য রাশিয়ায় আছে অবিশ্বাস্য কম খরচে থাকা-খাওয়ার সুব্যবস্থা। মাসে ১০ হাজার টাকার ভেতরেই একজন শিক্ষার্থীর থাকা-খাওয়াসহ যাবতীয় হাতখরচের কাজ সমাধা হয়ে যাবে। এই সংক্রান্ত বিস্তারিত এই লেখার পরবর্তী অংশে আলোচনা করা হয়েছে।

৪) স্বল্প খরচে চলাফেরা: রাশিয়ার সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যে সকল শিক্ষার্থী ফুল-টাইমে পড়াশোনা করছেন, তারা মেট্রো, বাস, ট্রলিবাস ও ট্রামের মতো পাবলিক ট্রান্সপোর্টগুলোতে বেশ সাশ্রয়ী মূল্যে চলাফেরা করতে পারেন। উদাহরণস্বরুপ, সাধারণ নাগরিকদের তুলনায় সাত ভাগের এক ভাগ ভাড়া দিয়েই শিক্ষার্থীরা রাশিয়ায় মাসিক মেট্রো পাস নিতে পারেন।

৫) সাশ্রয়ী মূল্যে কেনাকাটা: দেশি-বিদেশি বিভিন্ন কোম্পানি নিয়মিতভাবেই রাশিয়ায় অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ ছাড়ের ঘোষণা দিয়ে থাকে। স্টোরগুলো নিয়মিতভাবেই শিক্ষার্থীদের জন্য বিভিন্ন অফারের লিফলেট বিলি করে বিশ্ববিদ্যালয়, লাইব্রেরি ও ক্যাফেগুলোতে। বিশেষ করে স্টুডেন্ট হলিডে ও যেকোনো অ্যাকাডেমিক ইয়ারের শুরুতে এসব অফার থাকে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে।

Comments