১০ হাজার টাকা বেতনে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর-এর রাজস্ব খাতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

আবেদনের শেষ সময়: ২৬ নভেম্বর, ২০১৮

প্রতিষ্ঠান

প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর

পদ

সহকারী মডেলার

পদসংখ্যা

০১টি

বেতন

১০,২০০/- থেকে ২৪,৬৮০/- টাকা

আবেদনের শেষ সময় 

২৬ নভেম্বর, ২০১৮ তারিখ বিকাল ০৫:০০ টার মধ্যে।

আবেদনের নিয়মসহ বিস্তারিত জানতে নিচের বিজ্ঞপ্তিটি দেখুন

সব সময় চাকরির খবরের আপডেট পেতে ক্লিক করুন এখানে।

বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর

বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর বাংলাদেশের একটি রাষ্ট্রীয় সংস্থা। সংস্থাটি প্রত্নতত্ত্ব আইন ১৯৬৪ (১৯৭৬ সালে সংশোধিত) অনুসারে রাষ্ট্রের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন রক্ষা ও নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। ২০০৫ থেকে ঢাকার আগারগাঁওস্থ সদরদপ্তর থেকে কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। এ অধিদপ্তরের প্রধান কার্যনির্বাহীকে মহাপরিচালক বলা হয়। ১৮৬১ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটিশ শাসনামলে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া নামে এই প্রতিষ্ঠানটি যাত্রা করে। ১৯৭১-এ বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর ঢাকায় এর কার্যালয় স্থাপিত হয়।

১৯৮৩ সালে বিভাগীয় পুর্নবিন্যাসের মাধ্যমে ঢাকায় প্রধান দপ্তরসহ ৪টি বিভাগে আঞ্চলিক অফিস প্রতিষ্ঠা করা হয়। এ ছাড়া অধিদপ্তরের অধীনে ১৭টি প্রত্নতাত্ত্বিক জাদুঘর রয়েছে। এ অধিদপ্তর দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রাচীন সংস্কৃতি চিহ্নের আবিস্কারের মাধ্যমে ইতিহাস পুনরুদ্ধার এবং আবিস্কৃত স্থাপত্যিক কাঠামোর সংস্কার সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের কাজ করে থাকে।

বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর, বাংলাদেশের পুরাতাত্ত্বিক নির্দশনসমূহের তালিকা প্রণয়নসহ তাদের রক্ষণাবেক্ষণে কাজ করে থাকে। বর্তমানে (জুন ২০১৬) ৪৫২টি সংরক্ষিত পুরাকীর্তি রয়েছে এই অধিদপ্তরের অধীনে। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল মহাস্থানগড়, ময়নামতি, পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার, সীতাকোট বিহার, কান্তজীর মন্দির, ছোট সোনা মসজিদ, ষাট গম্বুজ মসজিদ, ভাসুবিহার, বিহার ও বারবাজার, লালবাগ দুর্গ।

তন্মধ্যে পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার ও ষাট গম্বুজ মসজিদ বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের অন্তর্গত মোট ১৭ টি জাদুঘর রয়েছে।

ঢাকা বিভাগঃ লালবাগ কেল্লা জাদুঘর, বালিয়াটি জমিদার বাড়ি জাদুঘর, ময়মনসিংহ জাদুঘর।

রাজশাহী বিভাগঃ পাহাড়পুর জাদুঘর, মহাস্হান জাদুঘর, রবীন্দ্রকাচারী বাড়ি জাদুঘর, পতিসর জাদুঘর, চলনবিল জাদুঘর।

রংপুর বিভাগঃ তাজহাট জমিদার বাড়ি জাদুঘর।

খুলনা বিভাগঃ খুলনা বিভাগীয় জাদুঘর, বাগেরহাট জাদুঘর, রবীন্দ্রকুঠিবাড়ি জাদুঘর, এম. এম. দত্তবাড়ি জাদুঘর, রবীন্দ্রনাথের শ্বশুর বাড়ি, দক্ষিণ ডিহি।

চট্টগ্রাম বিভাগঃ ময়নামতি জাদুঘর, জাতিতাত্ত্বিক জাদুঘর, আগ্রাবাদ।

বরিশাল বিভাগঃ শেরেবাংলা স্মৃতি জাদুঘর।

Department of Archaeology

Department of Archaeology is one of the government agency of Bangladesh. By the Laws of Archaeology 1964 (amended in 1976) this agency maintains the conservation and preservation of archaeological sites in the country. Since 2013 the department has been running its activities from the Administration Building situated in Agargaon in Dhaka.

The organization first founded in 1861 with the name Archaeological Survey of India. After the liberation of Bangladesh its office was established in Dhaka. In 1983 regional offices were established in the then 4 divisions including Dhaka as the headquarter by divisional rearrangement. Department of Archaeology (Bangladesh) compiles and also conserves the list of archaeological sites and artifacts of Bangladesh.

Currently (June 2016) there are 452 archaeological sites under the conservation of this department. Some of the mentionable among them are- Mahasthangarh, Mainamati, Somapura Mahavihara, Shita Coat Bihar, Nawabganj, Kantajew Temple, Choto Sona Mosque, Sixty Dome Mosque, Vasu Vihara, Barobazar, Lalbagh Fort. Among these, Somapura Mahavihara and Sixty Dome Mosque have been recognized as World Heritage Sites.

Also there are 17 Archaeology museums under the administration of this department. The department works on to recover history by discovering ancient cultural elements from remote areas scattered within the country, and to repair and preserve the discovered monuments and exhibit them. Currently there are 17 museums administrated by Department of Archaeology (Bangladesh).

Comments
Comments

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.