বিডিইউ এর অধীনে অফিস সহায়ক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

আবেদনের শেষ সময়: ১৭ জুলাই, ২০১৯

প্রতিষ্ঠান

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি (বিডিইউ), বাংলাদেশ

পদ

অফিস সহায়ক

পদসংখ্যা

০৪টি

শিক্ষাগত যোগ্যতা

এসএসসি পাস

বেতন

৮,২৫০/- থেকে ২০,৪১০/- টাকা

আবেদনের শেষ সময় 

১৭ জুলাই, ২০১৯ বিকাল ০৪:০০ টার মধ্যে

আবেদনের নিয়মসহ বিস্তারিত জানতে নিচের বিজ্ঞপ্তিটি দেখুন
সব সময় চাকরির খবরের আপডেট পেতে ক্লিক করুন এখানে।
ওয়াইএসআই বাংলা জবসে আজই আপলোড করুন আপনার সিভি। রেজিস্ট্রেশনের জন্য ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি (বিডিইউ), বাংলাদেশ

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ-বাংলাদেশের প্রথম বিশেষায়িত সরকারি ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়। ২০১৬ সালের ২৬ জুলাই গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার জাতীয় সংসদে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈরে  বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক সংলগ্নে ৫০ একর জায়গাজুড়ে এই বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের লক্ষ্যে আইন প্রণয়ন করে। গত ৬ জুন ২০১৮ সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য এবং ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির (আইইউটি) সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ নূরকে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ এর মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের আচার্য মো: আবদুল হামিদ।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ‘রূপকল্প ২০২১’ বাস্তবায়নে ডিজিটাল বাংলাদেশকে টেকসই করে চর্তুথ শিল্প বিপ্লবের সাথে তাল মিলিয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিভিন্ন বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতককোত্তর পর্যায়ে শিক্ষাদান, গবেষণা ও ডিজিটাল জ্ঞানের উৎকর্ষ সাধনের ব্যবস্থা করে তরুণ প্রজন্মকে দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করতে ও উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা।   চলতি ২০১৮- ২০১৯ শিক্ষাবর্ষে আগামী মার্চ ২০১৯ সাল থেকে একাডেমিক কার্যক্রম শুরু করবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ। ইতোমধ্যে প্রকৌশল অনুষদ ও শিক্ষা গবেষণা অনুষদ নামে দুটি  অনুষদ এবং ইনিস্টিটিউট ফর অনলাইন এন্ড ডিসটেন্স লার্নিং নামের একটি  ইনিস্টিটিউট এর অধীনে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করার অনুমোদন দিয়েছে  বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন। প্রকৌশল অনুষদের অধীনে প্রাথমিক ভাবে  ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন আইওটি, শিক্ষা ও গবেষণা অনুষদের অধীনে ব্যাচেলর  অব সায়েন্স ইন আইসিটি ইন এডুকেশনে স্নাতক পর্যায়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে।

বাংলাদেশে অনলাইন শিক্ষার নতুন দিক উন্মোচন করতে ইনিস্টিটিউট ফর  অনলাইন এন্ড ডিসটেন্স লার্নিং এর অধীনে সার্টিফিকেট কোর্স অন ডিজিটাল লার্নিং  ডিজাইন, সার্টিফিকেট কোর্স অন সাইবার সিকিউরিটি কোর্সে ২০১৮-২০১৯  শিক্ষাবর্ষেই শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম শুরু করবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান  ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ। এই কোর্সগুলো বাংলাদেশে একেবারেই নতুন  এবং বাংলাদেশের পাবলিক-প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর  রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ একমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে দেশের  ও দেশের বাইরের শিক্ষার্থীদের অনলাইনের মাধ্যমে পাঠদানের সক্ষমতা রয়েছে।   সার্টিফিকেট কোর্স অন ডিজিটাল লার্নিং ডিজাইন, সার্টিফিকেট কোর্স ইন সাইবার সিকিউরিটি কোর্সে অংশগ্রহন করে বাংলাদেশে এবং বাংলাদেশের বাইরের শিক্ষার্থীরা সহজ পদ্ধতিতে এবং স্বল্প খরচে হাতে কলমে দক্ষতার সনদ অর্জন করতে  পারবে যা বাংলাদেশকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে আরও এক ধাপ সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। তৈরি হবে যুগোপযোগী প্রযুক্তি উদ্যোক্তা যার ফলে  সম্প্রসারিত হবে দেশের প্রযুক্তির বাজার এবং তৈরি হবে নতুন নতুন কর্মসংস্থান।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ (বিডিইউ)। বাংলাদেশের প্রথম বিশেষায়িত সরকারি ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয় (সংক্ষেপে বিডিইউ)। বিশ্ববিদ্যালয়টি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার অদূরে গাজীপুর জেলায় অবস্থিত। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ (বিডিইউ) । বাংলাদেশের প্রথম বিশেষায়িত সরকারি ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়। (সংক্ষেপে বিডিইউ) একুশ শতকের বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ২০১৬ সালের ২৬ জুলাই গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার জাতীয় সংসদে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক সংলগ্ন এলাকায় ৫০ একর জায়গাজুড়ে একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের লক্ষ্যে আইন প্রণয়ণের মাধ্যমে এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ‘বিডিইউ’ এর  পুরোদমে কার্যক্রম শুরু হয় ৬ জুন ২০১৮ সাল থেকে।

বঙ্গবন্ধু কন্যা, দেশরত্ন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০০৮ সালে বাংলাদেশের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ  সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ৬ জানুয়ারি ২০০৯ সালে দ্বিতীয় বারের মত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। আর সেই নির্বাচনের ইশতেহারে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনের বছর ২০২১ সালে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ এবং তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি নির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের লক্ষ্যে ‘রূপকল্প ২০২১’ এর ঘোষণা করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ২০১৩ সালের আগেই বাংলাদেশকে ডিজিটালাইজেশনের দিকে অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে গেছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনার সরকার। এরপর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে নির্বচনী ইশতেহারে বাংলাদেশকে ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে উন্নত ও সমৃদ্বিশালী দেশের কাতারে নিয়ে আসার লক্ষ্যে ‘রূপকল্প ২০৪১’ ঘোষণা করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

২০১৪ সালের ১২ই জানুয়ারি টানা দ্বিতীয় বার সহ তৃতীয় বারের মত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যা, দেশরত্ন, জননেত্রী শেখ হাসিনার শপথ গ্রহণের পর ডিজিটালাইজেশনের দিকে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশকে ধরে রাখতে একাডেমি ভিত্তিক ডিজিটাল শিক্ষা ব্যবস্থার দিকে জোর দিতে ২০১৬ সালের ২৬ জুলাই গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহান জাতীয় সংসদে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিশেষত বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রে অগ্রসরমান বিশ্বের সঙ্গে সঙ্গতি রক্ষার নিমিত্তে বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার সুযোগ সৃষ্টি, আধুনিক জ্ঞানচর্চা বিশেষ করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির উপর যথাযথ গুরুত্ব প্রদানসহ পঠন-পাঠন ও গবেষণার কাজ পরিচালনা, নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবন এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার গতিকে তরান্বিত করার লক্ষ্যে গাজীপুর জেলায় স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি,  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামানুসারে “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি”, বাংলাদেশ স্থাপনকল্পে বিধান প্রণয়নের লক্ষ্যে আইন প্রণীত হয়।

ডিজিটাল বাংলাদেশকে টেকসই করতে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সাথে তাল মিলিয়ে  তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি এবং উচ্চতর প্রযুক্তির সাথে সম্পর্কিত যেমন ডিজিটাল ডেভেলপমেন্ট, ডিজিটাল টেকনোলজি, বায়োটেকনোলজি, ন্যানোটেকনোলজি, অ্যাডভ্যান্স টেকনোলজি, ইন্সট্রাকশনাল টেকনোলজি Robotics, IT/ITES, Cloud Computing, VLSI (very-large-scal-Integration), Navigation(Vehicle), Hardware Navigation I  Green technology, ই-কমার্স, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং, ইঞ্জিনিয়ারিং, টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, নেটওয়ার্ক এন্ড কমিউনিকেশন ম্যানেজমেন্ট, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবস্থাপনা, নেটওয়ার্ক এন্ড কমিউনিকেশন ম্যানেজমেন্ট, সাইবার নিরাপত্তা ও ব্যবস্থাপনা, ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে শিক্ষাদান, গবেষণা ও জ্ঞানের উৎকর্ষ সাধনের ব্যবস্থা করা হবে।

গতানুগতিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ধারণা থেকে বেরিয়ে এসে ফোর্থ ইন্ড্রাস্টিয়াল রেভুলেশনের সাথে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করে  একাডেমি এন্ড ইন্ড্রাস্টিয়াল ধারণাকে জোরদার করা হবে। যাতে করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির ছাত্র-ছাত্রীরা ইন্টারনেট ও প্রযুক্তির অবাধ ব্যবহার করে দক্ষ মানব সম্পদে পরিণত হয়ে  নতুন নতুন জ্ঞান এবং ইন্ডাস্ট্রি তৈরি করে ফোর্থ ইন্ড্রাস্টিয়াল রেভুলেশনে নেতৃত্ব প্রদানে সক্ষম হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো গাজীপুর জেলায় নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে ৫০ একর জায়গার ওপর বিশ্ববিদ্যালয় অবকাঠামো তৈরী করা হবে।বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষ থেকে। প্রাথমিকভাবে প্রকৌশল অনুষদের অধীনে ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন আইওটি এবং শিক্ষা ও গবেষণা অনুষদের অধীনে ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন আইসিটি ইন এডুকেশন কোর্সে ভর্তি শুরু হয়েছে।

অনুষদঃ ১. প্রকৌশল অনুষদ (ক.ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন আইওটি বিভাগ) এবং ২. শিক্ষা ও গবেষণা অনুষদ (ক.ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন আইসিটি ইন এডুকেশন)।

০১) ইনস্টিটিউট ফর অনলাইন এন্ড ডিসটেন্স লার্নিং ( ক. সার্টিফিকেট কোর্স অন ডিজিটাল লার্নিং ডিজাইন খ. সার্টিফিকেট কোর্স অন ডিজিটাল কনটেন্ট ডেভেলপমেন্ট গ.সার্টিফিকেট কোর্স অন মোবাইল এপ্লিকেশন ডেভলপমেন্ট ঘ. সার্টিফিকেট কোস ইন সাইবার সিকিউরিটি)

রাজধানী ঢাকা থেকে প্রায় ৪৬ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বকোণে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক সংলগ্ন বিটিআরসি এর তালিবাবাদ ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্রের মধ্যে ৫০ একর জায়গাজুড়ে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়টি।

৬ জুন ২০১৮ সালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের চ্যান্সেলরের আদেশক্রমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির প্রথম উপাচার্য হিসেবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য ও ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির (আই.ইউ.টি) সাবেক উপাচার্য এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ নূরকে নিয়োগ দেয়া হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির পাঠদান শুরু এবং প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈরে দুটি অস্থায়ী ভবন ভাড়া নেয়া হয়েছে।বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সথে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রক্ষার জন্য রাজধানীর আসাদগেটে ফ্ল্যাট নং-এ -৬,প্লট নং-২/৩, ব্লক-এ, ইকবাল রোড, (মিরপুর রোড) মোহাম্মদপুর,ঢাকা-১২০৭ এই ঠিকানায় বিশ্ববিদ্যালয়টির নগর কার্যালয় স্থাপন করা হয়েছে।

সূত্র: উইকিপিডিয়া।

Comments
Comments

Comments are closed.